আমাকে মুগ্ধ করেছে ইসলামের আধ্যাত্মিক দর্শন

0
22
আমাকে মুগ্ধ করেছে ইসলামের আধ্যাত্মিক দর্শন
আমাকে মুগ্ধ করেছে ইসলামের আধ্যাত্মিক দর্শন

ফ্রেডি আবদুস সামাদ বল্লাগ ১৯৩৫ সালে একটি সুইস ইহুদি পরিবারে জন্মান। কিশোর বয়স থেকে ফ্রেডি বল্লাগের ইসলামের সুফি মতবাদের প্রতি আগ্রহ ছিল। সুফিবাদের স্বরূপ জানতে তিনি বিভিন্ন মুসলিম দেশ ভ্রমণও করেন এবং এই সময় তাঁর ভেতরটা ইসলামের জন্য প্রস্তুত হয়। ১৯৫০ সালের পর ইসলাম গ্রহণ করেন। দীর্ঘ জ্ঞানচর্চা ও সাধনায় একসময় তিনি অধ্যাত্মবাদে পাণ্ডিত্য লাভ করেন।

 

ফ্রেডি আবদুস সামাদ বল্লাগ ইহুদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করলেও খ্রিস্টানদের সঙ্গে সখ্য গড়ে ওঠে তাঁর। বিশেষত ‘চার্চ অব দ্য ইস্টার্ন ক্রিশ্চানিটি’র সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক ছিল বল্লাগের। তিনি এক ঈশ্বরে বিশ্বাস করতেন। ইসলামের নিখাদ একত্ববাদের বিশ্বাস বল্লাগকে মুসলিম হতে এবং ঈসা (আ.)-এর ভালোবাসা তাঁকে মুহাম্মদ (সা.)-এর ওপর বিশ্বাস স্থাপনে উদ্বুদ্ধ করে।

বল্লাগ তাঁর বিশ বছর বয়সে ইসলাম ও তার অধ্যাত্মবাদ সম্পর্কে পড়তে শুরু করেন। সঙ্গে সঙ্গে ইহুদি ধর্মের সুফি ধারা ‘কাব্বালা’ সম্পর্কেও জানার চেষ্টা করেন। তিনি নিজেও এক বছর পর্যন্ত কাব্বালা পদ্ধতি চর্চা করেন এবং হতাশ হয়ে তা ছেড়ে দেন। তাঁর দাবি, তিনি পূর্বপুরুষদের ধারায় এগিয়ে যাওয়ার আগ্রহ খুঁজে পাননি। এমনকি ‘কাব্বালা’ ধারায় পরিতৃপ্ত কোনো গুরুও তিনি পাননি। ফলে ইসরায়েলে এক মাস অবস্থান করে সুইজারল্যান্ডের ব্যাসেলে ফিরে আসেন। ১৯৫০ সালে ফ্রেডি আলজেরিয়ার সুফিসাধক শেখ আহমদ আলাভি ও তাঁর অনুসারীদের সম্পর্কে জানতে পারেন। ইউরোপে সুফি মতবাদ অনেকটাই অপরিচিত ও নতুন। তবু তিনি আস্থা খুঁজে পেলেন এবং শেখ আবদুর রহমানের হাতে ইসলাম গ্রহণ করেন।

ইসলাম গ্রহণের পর ফ্রেডির অনেক কিছুই পরিবর্তন হয়ে গেল। বিশেষত দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ তাঁর দৈনন্দিন জীবনধারায় পরিবর্তন নিয়ে এলো। কিছুদিন তাঁকে ইসলাম গোপন করতেও হয়েছিল। মা-বাবাকে নিজের ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে বলতে পারেননি প্রথমেই। ইসলাম রক্ষার জন্য ফ্রেডিকে ১২ বছর পর্যন্ত সংগ্রাম করতে হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত তিনি তাঁর স্ত্রীর দেখা পান এবং তাঁরা একসঙ্গে জীবন কাটাতে সম্মত হন। এক সাক্ষাৎকারে ফ্রেডি বলেন, শুরুতে ইসলাম পালন করা কঠিন মনে হতো। কেননা ১৯৫৬ সালে আমার শহর ব্যাসেলে কোনো মুসলিম ছিল না।

ইসলাম গ্রহণের পর ফ্রেডি আবদুস সামাদ বল্লাগ নিজের ধর্মীয় জ্ঞান সমৃদ্ধকরণ ও ইসলামের দাওয়াতে মনোযোগ দেন। বিশেষত তিনি আন্ত ধর্ম আলোচনায় আগ্রহী ছিলেন। তিনি মনে করতেন ইবরাহিমি তথা আসমানি তিন ধর্মের লোকদের পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমে কাছে আসার সুযোগ আছে। আসমানি ধর্মের বাইরে সনাতন হিন্দু ধর্ম নিয়েও লেখাপড়া করেন। ২০১১ সালে আবদুস সামাদ বল্লাগ ইন্তেকাল করেন।

অ্যাবাউট ইসলাম থেকে আবরার আবদুল্লাহর ভাষান্তর

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY