গোপনে বিদ্যালয়ের গাছ বিক্রির অভিযোগ রায়পুরায়

0
187

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার উত্তরবাখরনগর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের যোগসাজসে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির এক অভিভাবক সদস্য ও বিদ্যোৎসাহী মিলে স্কুলে গাছ বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

গত ২৪ নভেম্বর এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলামের নিকট লিখিত অভিযোগ দেন উত্তরবাখরনগর ইউনিয়নের লোচনপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. হোসেন মিয়া।

হোসেন মিয়া বলেন, উত্তরবাখরনগর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের উত্তর-পশ্চিম পাশে বিভিন্ন সময়ে মোট ১৩ টি মেহেগনি গাছ রোপন করা হয়। সম্প্রতি নিময় বহির্ভূতভাবে দরপত্র ছাড়াই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ মিয়ার সঙ্গে আঁতাত করে ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য জাকির হোসেন ও বিদ্যোৎসাহী হাবিবুর রহমান স্থানীয় ব্যবসায়ী মধু মিয়ার কাছে গাছগুলো ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেন।

তিনি আরো বলেন, এরই মধ্যে তিনটি মেহেগনি গাছ কেটে নেওয়া হয়েছে। পরে প্রশাসন ও এলাকাবাসীর বাধায় গাছ কাটা বন্ধ রাখেন তারা।

গাছ কেনার কথা স্বীকার করে মধু মিয়া বলেন, হাবিব ও জাকিরের কাছ থেকে গাছ কিনেছি। এখনো তাদেরকে টাকা দিয়ে দেইনি। তিনটি গাছ কাটার পর স্থানীয়দের বাধায় গাছ কাটা বন্ধ রেখেছি।

গাছ বিক্রির সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে উত্তরবাখরনগর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ মিয়া বলেন, গোপনে গাছগুলো বিক্রি করেছিল অভিভাবক সদস্য জাকির ও বিদ্যোৎসাহী হাবিব। পরে খবর পেয়ে গাছ কাটা বন্ধ করি। গাছ বিক্রিতে কোনো নিয়মই মানা হয়নি।

নিজেকে গাছ ক্রয়-বিক্রয় কমিটির সভাপতি দাবি করে জাকির হোসেন বলেন, স্কুলের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অনুমতি নিয়ে সকল নিময়কানুন মেনেই তিনি ও বিদ্যোৎসাহী হাবিব গাছগুলো বিক্রি করেছেন। পরে বাধা পড়ায় গাছ কাটা বন্ধ রয়েছে। ফোন কল রিসিভ না করায় এ ব্যাপারে স্কুলের বিদ্যোৎসাহী সদস্য হাবিবুর রহমানের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

রায়পুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পাওয়ার পর গাছ কাটা বন্ধ করাসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্কুল কর্তৃপক্ষকে নিদের্শ দেওয়া হয়েছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY