জামিন নিয়ে ফিরেই হামলা

0
63

হত্যা মামলায় প্রধান আসামি হয়ে পলাতক অবস্থায় জামিন নিয়ে ফিরেই প্রতিপক্ষের ওপর পুনরায় হামলার করে ফেঁসে গেছেন দক্ষিণ বগুড়ার ত্রাস শীর্ষ সন্ত্রাসী যুবলীগ নেতা নাদিম প্রামানিক। গতকাল শুক্রবার রাতে নাদিম প্রামানিককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বগুড়া শহরের ফুলতলা এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপের ধারাবাহিক হত্যাকাণ্ডের অন্যতম হোতা এই নাদিম।

তিনি ফুলতলা বাজার এলাকার আরেক শীর্ষ সন্ত্রাসী মজনু প্রামানিকের ভাগিনা এবং বগুড়া শহর যুবলীগের ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির সাধারণ সম্পাদক। একই সাথে নাদিম ফুলতলা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সভাপতি।

শাজাহানপুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, শুক্রবার রাতে পলাতক থাকা অবস্থায় ফুলতলা এলাকার নিজের বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার হন নাদিম। তার গ্রুপের অন্য দুই সদস্য আবু হানিফ আকন্দ ও মিন্টু মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয় আগের দিন বৃহস্পতিবার রাতে। নাদিমের বিরুদ্ধে হত্যা, অস্ত্র ও চাঁদাবাজিসহ মোট ৯টি মামলা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, দক্ষিণ বগুড়ার ফুলতলা এলাকার এক সময়ের শীর্ষ দুই সন্ত্রাসী ছিলেন যুবলীগ নেতা মজনু প্রামানিক ও আমিনুল ইসলাম শাহীন। এই দুই সন্ত্রাসীর দুই গ্রুপের উত্তরসূরী মজনু প্রামানিকের ভাগিনা যুবলীগ নেতা নাদিম প্রামানিক ও শাহিনের ছেলে তৌহিদুর রহমান লিখন। নাদিম ও লিখন গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় প্রভাব বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি লিখন গ্রুপের সদস্য ফোরকান নামে এক সন্ত্রাসীকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষ। ওই মামলায় নাদিম প্রামানিককে প্রধান করে ১৩ জনকে আসামি করা হয়। হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই বাহিনী প্রধান নাদিম ছিলেন পলাতক। এদিকে এই হত্যা মামলার আসামিরা উচ্চ আদালত থেকে অন্তবর্তীকালীন জামিন নিয়েছে বলে দাবি করে দলবলসহ এলাকায় ফিরে আসেন নাদিম। তারা বৃহস্পতিবার রাতে ফুলতলা সরকারি স্কুলের সামনে প্রতিপক্ষ লিখন গ্রুপের সদস্যদের ওপর সশস্ত্র হামলা চালান। এই হামলার নেতৃত্ব দেন নাদিম। সংঘর্ষে লিখন গ্রুপের ৩ জন এবং নাদিম গ্রুপের ১ জন আহত হন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY