হাজী সেলিমের দখলকৃত খাসজমি উদ্ধারে আবারও অভিযান প্রশাসনের

0
270
হাজী সেলিমের দখলকৃত খাসজমি উদ্ধারে আবারও অভিযান প্রশাসনের
হাজী সেলিমের দখলকৃত খাসজমি উদ্ধারে আবারও অভিযান প্রশাসনের

হাজী সেলিমের শিল্পপ্রতিষ্ঠান মদিনা গ্রুপের টাইগার সিমেন্ট ফ্যাক্টরির অভ্যন্তরে অবৈধভাবে দখলে রাখা সরকারি প্রায় ১৪ বিঘা খাসজমি উদ্ধারে আবারও অভিযান পরিচালনা করেছে উপজেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার বিকালে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা শিল্পনগরী এলাকায় এ অভিযোন পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি দল।

এ সময় অভিযানকারী দল টাইগার সিমেন্ট ফ্যাক্টরির অভ্যন্তরে দখলে রাখা সরকারি খাসজমি থেকে একটি টিনশেড গোডাউন ও পাথর অপসারণ করে তা দখলমুক্ত করে। অভিযানকারী দল এ সময় দখলমুক্ত করা ওই জমিতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সরকারি সম্পত্তি উল্লেখ করে একাধিক সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়।

এর আগে গত রোববার বিকালে টাইগার সিমেন্ট ফ্যাক্টরির অভ্যন্তরে এই ১৪ বিঘা সরকারি খাসজমি উদ্ধারে প্রশাসনের পক্ষে অভিযান পরিচালনা করেন সোনারগাঁও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল মামুন। অভিযানকারী দল ওই দিন সময়স্বল্পতার কারণে ও বুলডোজার বিকল হয়ে পড়ায় টাইগার সিমেন্ট ফ্যাক্টরির অভ্যন্তরে অবৈধভাবে গড়ে উঠা সব স্থাপনা উচ্ছেদ না করে অভিযান সমাপ্ত করে।

তবে সরকারি সম্পত্তিতে টাইগার সিমেন্ট কারখানা কর্তৃপক্ষ যেসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলেছে তা দখলমুক্ত করে দিতে ৩ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে নোটিশ প্রদান করে উপজেলা প্রশাসন।

উপজেলা প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে দখল ছেড়ে না দেয়ায় আজ (বৃহস্পতিবার) পুনরায় সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা শিল্পনগরীর ইসলামপুর এলাকায় অবস্থিত মদিনা গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান টাইগার সিমেন্ট ফ্যাক্টরির অভ্যন্তরে মদিনা গ্রুপ আরও কয়েকটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করার জন্য চর রমজান সোনাউল্লাহ মৌজায় দিয়ারা ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত ৭৪১০, ৭৪১২, ৭৪১৪, ৭৬২৮, ৭৬৩৫, ৭৬৩৬, ৭৬৪৪, ৭৬৪৫, ৭৬৫৩ ও ৭৬৫৭ দাগে ১ দশমিক ০৮৪৪ একর এবং ৯৬০১ দাগে ২ দশমিক ৩৩২০ একর ভূমি অবৈধভাবে বালু ফেলে দখল করে নেয়।

ওই সময় সোনারগাঁও উপজেলা ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ও প্রায় ১১.৩৮ বিঘা সরকারি খাস সম্পত্তি চিহ্নিত করে সেখানে লাল নিশান টানিয়ে দেন।

এ ব্যাপার ২০১৯ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সোনারগাঁও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজমুল হোসেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে হাজী সেলিমের সরকারি খাস সম্পত্তি অবৈধভাবে দখলের বিষয় উল্লেখ করে একটি চিঠি প্রেরণ করেন।

দখল করা সম্পত্তি স্থায়ী বন্দোবস্তের জন্য ২০১৮ সালের ৬ আগস্ট মদিনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী সেলিম তার কোম্পানির প্যাডে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের বরাবর একটি আবেদন করেন।

ওই আবেদনের পর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় তাকে সম্পত্তি স্থায়ী বন্দোবস্ত না দিলেও সংসদ সদস্যের প্রভাব খাটিয়ে হাজী সেলিম দেয়াল নির্মাণ করে তা দখলে নিয়ে নেন।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও সোনারগাঁ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয় থেকে মদিনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী সেলিমকে সরকারি সম্পত্তি অবৈধ দখল ছেড়ে দেয়ার জন্য নোটিশ দেয়া হয়।

জানতে চাওয়া হলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে হাজী সেলিম সংসদ সদস্যের প্রভাব খাটিয়ে প্রায় ১৪ বিঘা সরকারি খাস সম্পত্তি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে দখল করে নেন।

সোনারগাঁ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল-মামুন জানান, মদিনা গ্রুপের দখলে থাকা প্রায় ১৪ বিঘা সরকারি সম্পত্তি চিহ্নিত করা হয়েছে। চিহ্নিত হওয়া ওই সম্পত্তির উপর থেকে গত বৃহস্পতিবার ৩টি স্থাপনার মধ্যে ২টির আংশিক উচ্ছেদ করা হয়েছে। সময় স্বল্পতার কারণে ও বুলডোজার বিকল হয়ে পড়ায় উচ্ছেদ অভিযান পুরোপুরি ভাবে করা সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, মদিনা গ্রুপের ভেতরে হাজী সেলিমের দখলে থাকা সরকারি সম্পত্তির বর্তমান বাজার মূল্য হবে প্রায় ১৮ কোটি টাকা। সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা সম্ভব না হওয়ায় মদিনা গ্রুপকে তিন দিনের মধ্যে সরকারী সম্পত্তি থেকে তাদের সব স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার জন্য সময় বেঁধে দেয়া হয়েছিল।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম জানান, সরকারী ১৪ বিঘা খাস জমি দখলমুক্ত করে দিতে বেঁধে দেয়া তিন দিন সময় অতিক্রম হওয়ার পর বৃহস্পতিবার বিকালে আবারও মেঘনা শিল্পনগরী এলাকায় অবস্থিত টাইগার সিমেন্ট ফ্যাক্টরিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

এ সময় হাজী সেলিমের দখলে থাকা প্রায় ১৪ বিঘা জমি থেকে একটি টিনশেড গোডাউন ও পাথরের স্তূপ অপসারণ করে তা দখলমুক্ত করে। পরে দখলমুক্ত হওয়া ওই জমিতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়।

তিনি বলেন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে চিহ্নিত করা ওই সরকারি সম্পত্তিতে টিনের দেয়াল অথবা কাঁটাতারের বেড়া স্থাপন করা হবে। এছাড়াও ওই সম্পত্তি সবসময় দখলমুক্ত রাখতে স্থানীয় পিরোজপুর ভূমি অফিসের মাধমে তদারকি করা হবে।

বৃহস্পতিবার বিকালে হাজী সেলিমের ব্যক্তি মালিকানাধীন মদিনা গ্রুপের টাইগার সিমেন্ট কারখানায় অভিযান পরিচালনা শেষে অভিযানকারী দল স্থানীয় ইসলামপুর গুচ্ছগ্রামে অভিযান চালায়।

এ সময় অভিযানকারী দল গুচ্ছগ্রামে যুবলীগ নেতা কামাল হোসেনের (নেতা কামাল) দখলে থাকা প্রায় ৩ বিঘা খাসজমি উদ্ধারে তৎপরতা চালায়।

অভিযানকারী দল এ সময় ইসলামপুর গুচ্ছগ্রামে কামাল হোসেনের অবৈধ মার্কেট আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দেয় ও জেলা প্রশাসকের পক্ষে সরকারি সম্পত্তি উল্লেখ করে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়।

এ সময় অভিযানকারী দল একটি টিনের ঘর থেকে অস্থায়ী আওয়ামী লীগ কার্যালয় লিখা সম্বলিত একটি সাইনবোর্ড অপসারণ করে।

অভিযানকারী দলের সঙ্গে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- পিরোজপুর ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আতাউর রহমান, মোগরাপাড়া ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মো. জালাল উদ্দিন ও ভূমি অফিসের বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY