সরকারি-বেসরকারি সংস্থার সমন্বয় জরুরি অবহেলিত ও নির্যাতিতদের সেবা নিশ্চিতে

0
225

সমাজের অবহেলিত ও নির্যাতিত মানুষের সেবা নিশ্চিত করতে সরকারি ও বেসরকারি সংস্থাগুলোর কাজের সমন্বয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা। বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ (বিএনপিএস) আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তারা বলেছেন, সমন্বয়ের অভাবে অনেক সময় জনগণ প্রাপ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হন। বিশেষ করে নারীদের বঞ্চনার ঘটনা বেশী ঘটে। বঞ্চনা ও অবহেলার অবসান ঘটাতে সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান তারা।

বুধবার রাজধানীর রায়ের বাজারস্থ ডাব্লিউবিবি ট্রাস্ট মিলনায়তনে আয়োজিত ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপিএস’র পরিচালক খন্দকার আরিফুল ইসলাম। আয়োচনায় অংশ নেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ হোসেন খোকন, পুলিশ কর্মকর্তা মো. আব্দুল লতিফ, সাংবাদিক নিখিল ভদ্র, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সমাজ সেবা কর্মকর্তা রোকন-উজ-জামান, বিএনপিএস’র ঢাকা কেন্দ্র (পশ্চিম)’র অফিস ইনচার্জ মো. হেলাল উদ্দিন, রায়ের বাজার পরিবেশ উন্নয়ন কমিউনিটি ফোরামের সভাপতি ডা. মো. রোকনুজ্জামান, রায়ের বাজার কমিউনিটি ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শিউলি আক্তার, হাজারীবাগ কমিউনিটি ফোরামের সভাপতি হোসনেয়ারা রাফেজা প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, চলমান করোনা মহামারী স্বাস্থ্য সংকটের পাশাপাশি নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতাকেও বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে। নির্যাতিত নারীদের আইনি সহয়তা প্রদান করে এমন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের হিসেবে গতবছরের তুলনায় এ বছর মার্চ-এপ্রিল মাস নাগাদ নারী নির্যাতনের ঘটনা ৭০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। করোনার কারণে স্বাভাবিক সেবা কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। একইসঙ্গে কর্মসংস্থান হারানো মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। যা নতুন নতুন নির্যাতন ও নিপীড়নের ঘটনার জন্ম দিচ্ছে।

নারীসহ অবহেলিত জনগোষ্ঠির সেবা নিশ্চিত করতে স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, লিঙ্গ, ধর্ম, গোষ্ঠি, নৃতাত্ত্বিক পরিচয়, প্রতিবন্ধকতা, যৌন-পরিচিতি, যৌনতা নির্বিশেষে সব ধরনের ভুক্তভোগী ও সহিংসতা জয়ীর জন্য সুরক্ষা ও ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে হবে। ধর্ষণ-নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার ভুক্তভোগীদের মামলা পরিচালনাকালে লিঙ্গীয় সংবেদনশীল আচরণ করতে পুলিশ, আইনজীবী, বিচারক ও সমাজকর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY