সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোনে আইটি শিল্পের বিপুল সম্ভবনা

0
168
সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোনে আইটি শিল্পের বিপুল সম্ভবনা

সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোনে আইটি শিল্পের বিপুল সম্ভবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন আমেরিকার আইটি ইন্ডাস্ট্রি আ্যামাজান ওয়েব সার্ভিসের ক্লাউড বিশেষজ্ঞ শামীম আশরাফি।

গবেষণা, উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়নে দেশের রোল মডেল হবে বৃহৎ এ ইকোনমিক জোন। উত্তরবঙ্গের মানুষের দৌড়গোড়ায় পৌছে যাবে আইটি ও টেকনোলজি শিল্প। শুক্রবার বিকেল সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোন পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা জানান।

এ সময় বিশেষজ্ঞ শামীম আশরাফি আরও বলেন, যমুনা পাড়ের বিশাল এলাকায় উন্নয়ন কাজ দ্রুতই এগিয়ে চলছে। এটা দেখে পৃথীবির বড় বড় কোম্পানি, যারা আমাদের দেশের উন্নয়নে সহযোগি হবার জন্য সুযোগ সুবিধা খুজছে অব্যশই তারা অনেক বেশি আগ্রহী হবে। কারণ ইকোনমিক জোন তাদের সেই সুযোগ দিতে পারবে।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোনের পরিচালক শেখ মনোয়ার হোসেন, সিরাজগঞ্জ নর্থওয়েস্ট পাওয়ার প্লান্টের প্রকৌশলী মশিউর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাহফুজুর রহমান, শাহ ই আলম পাটোয়ারী, নিউইর্য়ক প্রবাসী ব্যবসায়ী আবদুল মমিন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম ও ইকোনমিক জোনের জিএম শহীদুর রহমান প্রমুখ।

জানা গেছে, উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার খাসবড়শিমুল, পঞ্চসোনা, চকবয়রা এবং বেলকুচি উপজেলার বেলছুটি ও বড়বেরা খারুয়া এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে বাংলাদেশের অন্যতম ইকোনমিক জোন। সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতুর দক্ষিণে যমুনা নদীর বুকে ১.৪২ একর জায়গায় গড়ে উঠছে এই অর্থনৈতিক অঞ্চল।

ব্যক্তি মালিকানাধীন ১১টি কোম্পানির যৌথ উদ্যোগে এ অর্থনৈতিক অঞ্চলে পর্যাক্রমে ৭০০টির মতো ছোট-বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে। গ্যাস, বিদ্যুৎ ও অবকাঠামোগত সুবিধার পাশাপাশি জল, স্থল এবং রেলপথে উৎপাদিত পণ্য সরবরাহের সুবিধা এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে কারখানা গড়ে উঠবে।

এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোনের পরিচালক শেখ মনোয়ার হোসেন বলেন, মানুষকে শিকড়চ্যুত না করে ঘরের কাছেই কর্মের সুবিধা সৃষ্টিতে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপের অংশ হিসেবে সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোন প্রতিষ্ঠিত। গ্যাস, বিদ্যুৎ ও অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা নিয়ে দেড় বছরের মধ্যে তা কারখানা করার উপযোগী হলে উত্তরাঞ্চলের প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে আশা করছে কর্তৃপক্ষ।

এ ছাড়া বিশ্বায়নের যে সুবিধা রয়েছে সেগুলোকে গ্রামীণ জনপদে নিয়ে আসতে এবং টেকনোলজি সমৃদ্ধ দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তুলতে ইকোনমিক জোন বিশেষ ভুমিকা রাখবে বলেও জানান তিনি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY