পশ্চিমাঞ্চলে ট্রেনের ভয়াবহ শিডিউল বিপর্যয়ে দুর্ভোগ

0
129
পশ্চিমাঞ্চলে ট্রেনের ভয়াবহ শিডিউল বিপর্যয়ে দুর্ভোগ

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাক এলাকায় শুক্রবার (২৭ মে) রাতে ঢাকাগামী পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনসহ দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এতে দেশের উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। শনিবার (২৮ মে) সকাল ১০টায় ট্রেনের লাইনচ্যুত ইঞ্জিন ও বগি উদ্ধারের পর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়। তবে দীর্ঘসময় যোগাযোগ বন্ধ থাকায় ভয়াবহ শিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল রুটের সব ট্রেন। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

শনিবার (২৮ মে) সকাল ৬টায় আন্তঃনগর ধূমকেতু এক্সপ্রেস ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। এ ট্রেনের যাত্রী শাহিদা আক্তার ভোরে বাসা থেকে বেরিয়ে যাত্রার নির্ধারিত সময়ের আগেই স্টেশনে পৌঁছান। শিশুসন্তানকে নিয়ে স্টেশনে দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষায় তিনি। তবে দুপুর সোয়া ১টার দিকেও ট্রেনটি ছাড়েনি।

শাহিদা আক্তার, ভোরে এসেছি এখনো ট্রেন ছাড়েনি। শিশুসন্তানকে নিয়ে দীর্ঘসময় অপেক্ষা করছি। বাচ্চাটা অসুস্থ হওয়ার দশা। সন্তানকে নিয়ে কোথাও যেতেও পারছি না। এখনো খাবার খাইনি। কখন ট্রেন ছাড়বে তাও কেউ বলতে পারছেন না। মহাবিপদে পড়েছি।

গাইবান্ধা থেকে ঢাকা এসেছিলেন একটি গণমাধ্যমের কর্মী। রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের আগাম টিকিট কিনেছিলেন তিনি। শনিবার (২৮ মে) সকাল ৯টা ১০ মিনিটে ট্রেনটি ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। তবে দুপুর ১টা ১৫ মিনিটেও ট্রেনটি স্টেশনেই আসেনি।

তিনি বলেন, ‘দুর্ঘটনা ঘটতেই পারে। তবে এত দীর্ঘসময়েও রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক করা গেলো না, এটা মেনে নেওয়ার মতো নয়। দ্রুত সমস্যা সমাধানে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা থাকা উচিত।’

এদিকে, সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে স্টেশন ছাড়ার কথা ছিল নীলসাগর এক্সপ্রেসের। তবে পরে ট্রেনটি ছাড়ার সময়ে পরিবর্তন আনা হয়। স্টেশন থেকে সম্ভাব্য সময় ঠিক করা হয়েছে ১টা ৪০ মিনিটে।

এছাড়া সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে সুন্দরবন এক্সপ্রেস স্টেশন ছাড়ার কথা থাকলেও তা ২টা ৪০ মিনিটে ছাড়তে পারে বলে জানানো হয়েছে। সকাল ১০টা ১০ মিনিটে একতা এক্সপ্রেসের স্টেশন ছাড়ার কথা থাকলেও সেটি ছাড়ার সম্ভাব্য সময় বলা হয়েছে ২টা ৫০ মিনিটে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের একজন কর্মকর্তা বলেন, শুক্রবার রাতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর মৌচাক এলাকায় ঢাকাগামী পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনসহ দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। এরপর ঢাকার সঙ্গে পশ্চিমাঞ্চলের সব ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এখন ট্রেন চলাচল শুরু করেছে। তবে শিডিউল স্বাভাবিক হতে কিছুটা সময় লাগবে, আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY