গোপালগঞ্জে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও আ.লীগ সমর্থকদের সংঘর্ষে ৫০ জন আহত

0
116
গোপালগঞ্জে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও আ.লীগ সমর্থকদের সংঘর্ষে ৫০ জন আহত

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে গত ২৬ মার্চ সড়ক দুঘটনায় চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ আকরাম জাফর ফকির (৭২) মারা যাওয়ায় আগামী ২৭ জুলাই উপজেলার বাটিকামারী ইউনিয়নে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ ইউনিয়ন পরিষদ উপনির্বাচনে প্রচারণার মিছিল দেওয়াকে কেন্দ্র করে স্বতন্ত্র ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় উভয়পক্ষের ৫০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় উভয়পক্ষের নির্বাচনি ক্যাম্পসহ বেশ কিছু দোকানপাট ও একাধিক মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার বাটিকামারী বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে ১৩ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্য আহতদের স্থানীয়সহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহ নাজিম উদ্দিন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চেয়ারম্যান শাহ আকরাম জাফর ফকিরের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, আগামী ২৭ জুলাই মুকসুদপুর উপজেলার বাটিকামারী ইউনিয়ন পরিষদ উপনির্বাচন উপলক্ষে শুক্রবার বিকালে স্বতন্ত্র প্রার্থী এবাদত মাতুব্বরের (আনারস) একটি মিছিল বের করেন তার কর্মী ও সমর্থকরা। এ সময় মিছিলটি বাটিকামারী বাজারে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থী শাহ নাজিম উদ্দিনের নির্বাচনি ক্যাম্পের সামনে আসলে উভয়পক্ষের কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায় হাতাহাতি হয়। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে উভয়পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হন।

মারাত্মক আহত- নুর ইসলাম ফকির (৫০), জাফর মিয়া (২৪), ডানু শেখ (৭০), ইসমাইল মোল্যা (১৩), আরজু মাতুব্বর (৪০), জাফর মিয়া (৭০), আফসার ভূঁইয়া (৬০), জাহাঙ্গীর মোল্যা (৫০), পান্নু মাতুব্বর (৫২), বিল্লাল হোসেন (৬৫), টুটুল শেখ (৩৩) ও রফিকুল ইসলামকে (২৬) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্য আহতদের স্থানীয়সহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। সংঘর্ষের সময় উভয়পক্ষের নির্বাচনি ক্যাম্পসহ বেশ কিছু দোকানপাট ও একাধিক মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও লুটপাট হয়। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মুকসুদপুর থানার ওসি আবু বকর মিয়া জানান, নির্বাচনি প্রচারণা নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এলাকা এখন শান্ত রয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY