উইলিয়াম রুতোকে কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট ঘোষণা

0
102
উইলিয়াম রুতোকে কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট ঘোষণা

কেনিয়ার বিতর্কিত নির্বাচনে উইলিয়াম রুতোকে প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচনের এক সপ্তাহ পর সোমবার (১৫ আগস্ট) নাটকীয়ভাবে রুতোকে বিজয়ী ঘোষণা করেন দেশটির নির্বাচন কমিশনের প্রধান। ২০১৩ সাল থেকে ডেপুটি প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন রুতো। খবর আল জাজিরার।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাইলা ওদিঙ্গার চেয়ে সামান্য ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন উইলিয়াম রুতো। নির্বাচনের কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, তার ঝুলিতে পড়েছে ৫০.৪৯ ভাগ ভোট। অন্যদিকে রাইলা ওদিঙ্গা পেয়েছেন ৪৮.৮৫ শতাংশ ভোট।

নির্বাচন নিয়ে কেনিয়ায় সহিংসতার ইতিহাস রয়েছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনের প্রায় এক সপ্তাহ পর অনেকটা নাটকীয়ভাবে তাকে জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। ক্ষমতার লড়াই এখন আদালতে গড়াতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

দেশটির রাজৈনৈতিক অঙ্গন আবারও অস্থিতিশীল হয়ে উঠতে পারে বলেও মনে করছেন বিশ্লেষকরা। ফলাফল নিয়ে ইতোমধ্যে রাজধানী নাইরোবিতে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ হয়েছে। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ করছে ওদিঙ্গার সমর্থকরা।

গত মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) পূর্ব-আফ্রিকার ‘পাওয়ারহাউজ’ খ্যাত কেনিয়ায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। একই সঙ্গে সংসদীয় ও স্থানীয় নির্বাচনও হয়েছে। নির্বাচনের পর এর ফলাফল ঘোষণা নিয়ে শুরু হয় নাটকীয়তা।

ভোট গণনার শুরুর দিকে অনেকটাই এগিয়ে ছিলেন নাইলা ওদিঙ্গা। কিন্তু এক পর্যায়ে ভোট গণনা ও ফলাফল প্রকাশ মন্থর হয়ে যায়। এদিকে ফলাফল নিয়ে দেশটির গণমাধ্যমেও নানা বিভ্রান্তি দেখা দেয়।

ভোট গণনা বিষয়ে গণমাধ্যমের বিভ্রান্তি ও নির্বাচন কমিশনের ধীরগতির কারণে জনগণের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পুরো দেশ যখন নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ফলাফলের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায়, তখন রাজধানী নাইরোবির জাতীয় ভোট গণনাকেন্দ্র ন্যাশনাল ট্যালিং সেন্টারে হট্টগোল শুরু হয়।

ভোট গণনা কেন্দ্রে স্থাপিত সরাসরি ফলাফল প্রদর্শন করার পর্দাটি এর কয়েক ঘন্টা আগেই বন্ধ করে দেয়া হয়। পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠলে রোববার (১৪ আগস্ট) রাতে অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এর মধ্যেই ভোটের হিসাবে নাইলা ওদিঙ্গার চেয়ে নাটকীয়ভাবে এগিয়ে যান উইলিয়াম রুতো।

সোমবার (১৫ আগস্ট) পরিস্থিতি আরও নাটকীয় হয়ে ওঠে। ফলাফল ঘোষণার আগ মুহূর্তে নির্বাচন কমিশনের সাত কমিশনারের মধ্যে চারজন কমিশনারই এক ঘোষণায় জানান, তারা এ নির্বাচনের ফলাফলের দায় নেবেন না। এ নিয়ে শুরু হয় উত্তেজনা। ফলাফল ঘোষণা করতে আরও দেরি হয়।

এক বিবৃতিতে ওই চার কমিশনার বলেন, ‘এ নির্বাচনের যে ফলাফল ঘোষণা হতে যাচ্ছে এর দায়-দায়িত্ব আমরা নেবনা। কারণ এটি অস্বচ্ছ নির্বাচন।’ এ সময় তারা দেশবাসীকে শান্ত থাকার ও বিষয়টি নিয়ে আদালতের দারস্থ হওয়ার আহ্বান জানান।

এর ঘণ্টা খানেক পর প্রধান নির্বাচন কমিশন ওয়াফুলা চেবুকাটি বলেন, ‘ভয়ভীতি ও হয়রানি সত্ত্বেও আপনাদের সামনে দাঁড়িয়েছি। দেশের আইন অনুসারেরই আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি।’ এরপর তিনি ঘোষণা করেন, ‘আইন মেনেই উইলিয়াম রুতোকে প্রেসিডেন্ট ঘোষনা করা হলো।’

ফলাফল প্রকাশের পরপরই নির্বাচন কমিশনকে অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য দেন রুতো। বলেন, ‘আমরা আর পেছনে ফিরে তাকাবো না। আমরা ভবিষ্যতের দিকে তাকাবো। আমাদের সবার মাঝে ঐক্য দরকার সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য।’

কেনিয়া কোয়ানজা (কেনিয়া ফার্স্ট) জোটের প্রধান রুতো। গত প্রায় ১০ বছর ধরে ডেপুটি প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করে আসছেন তিনি। তবে সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনিয়াত্তার সঙ্গে তার সম্পর্ক শীতল হতে শুরু করে। এবারই প্রথম প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ৫৫ বছর বয়সী এ রাজনীতিক। নির্বাচনে বিরোধী প্রার্থী ওদিঙ্গাকে সমর্থন দেন প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনায়াত্তা।

কেনিয়া পূর্ব-আফ্রিকার সবচেয়ে ধনী ও সবচেয়ে স্থিতিশীল দেশ। তবে বিশ্বব্যাপী খাদ্য ও জ্বালানি তেলের দামের প্রভাব দেশটির অর্থনীতিতেও প্রভাব ফেলেছে। ৪০ বছরের মধ্যে খরার কারণে দেশটির উত্তরাঞ্চলে ব্যাপক ফসলহানি হচ্ছে। দেশটির ৪১ লাখ মানুষ খাদ্য সহায়তার ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY