ইবি ছাত্রী নির্যাতনে শাস্তি, ছাত্রলীগ নেত্রীসহ ৫ জনের আবাসিকতা বাতিল

ইবি ছাত্রী নির্যাতনে শাস্তি, ছাত্রলীগ নেত্রীসহ ৫ জনের আবাসিকতা বাতিল

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন এক ছাত্রীকে নির্যাতনের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরীসহ পাঁচজনের আবাসিকতা বাতিল করেছে হল প্রশাসন। তাদের হল ছাড়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার হল প্রশাসন এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়।

এর আগে হল কর্তৃপক্ষের করা তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দেয় প্রভোস্টের কাছে। এতে নির্যাতনের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় পাঁচজনকে হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

হল প্রভোস্ট শামসুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, হলের তদন্ত কমিটির দেওয়া প্রতিবেদন পর্যালোচনায় বসে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরা দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সভা করেছি। এতে পাঁচজনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাদের আবাসিকতা বাতিল করা হয়েছে।

অভিযুক্তরা হলেন ইবি শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরী অন্তরা, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের তাবাসসুম ইসলাম ও মাওয়াবিয়া জাহান, আইন বিভাগের ইসরাত জাহান মীম ও চারুকলা বিভাগের হালিমা খাতুন উর্মী।

এদিকে গতকাল তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গঠিত তদন্ত কমিটি। সেই প্রতিবেদনেও অভিযোগকারী ছাত্রীকে অমানুষিক নির্যাতনের তথ্য উঠে এসেছে। সত্যতা মিলেছে বিবস্ত্র ভিডিও ধারণের বিষয়েও। নির্যাতনের বর্ণনায় তদন্ত কমিটির সদস্যরাও বিব্রত হন বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তদন্তসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, ওই মোট ১১ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন দিয়েছে কমিটি। এর সঙ্গে শতাধিক পৃষ্ঠার সংযুক্তি দেওয়া হয়। তবে সেখানেও কোনো সুপারিশ করা হয়নি। প্রতিবেদনের একটি কপি ইতিমধ্যে হাইকোর্টে পাঠানো হয়েছে।

গত ১২ ফেব্রুয়ারি রাতে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের গণরুমে প্রায় সাড়ে চার ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন করা হয় বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীর। তার ভাষ্য, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরী ও তার অনুসারীরা তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করেন। এ ঘটনা কাউকে জানালে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। পরে ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, হলের প্রাধ্যক্ষ ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দেন। এ ঘটনায় রিট হলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের করা কমিটি ও হল কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিল। দুই প্রতিবেদনেই নির্যাতনের সত্যতা মিলেছে। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের করা তদন্ত কমিটিও কেন্দ্রে পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে। ছাত্রলীগও ঘটনার সত্যতা পেয়েছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY